সর্বশেষ

10/recent/ticker-posts

সিলেটে বন্দর বাজারের ফারিতে অনসন করছেন রায়হানের মা

 


ছবি; নিহত রায়হান



গত ১১ই অক্টোবর পুলিশের নির্যাতনে সিলেটের বন্দর বাজার ফারিতে নিহত হন রায়হান আহম্মদ নামের এক যুবক। তার হত্যাকারী এসআই আকবর এখনো পলাতক, তাকে এখন পর্যন্ত গ্রেফতার করা যায় নি। এদিকে হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে সিলেটের বন্দর বাজার পুলিশ ফারিতে অনশন করছেন তার মা সালমা বেগমসহ তার পরিবারের সদস্যরা। 


রবিবার (২৫ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টা থেকে তারা মাথায় কাফনের কাপড় বেঁধে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির সামনে অবস্থান নেন। তারা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে বিভিন্ন ধরনের পোষ্টার প্রদর্শন করেন এবং তাদের দাবি, যেন অতিবিলম্বে অপরাধীদের শাস্তির আওতায় আনা হয় সেই অনুরোধও করেন।

রায়হানের মা বলেন, ‘আমার ছেলে হত্যা মামলার কোনও অগ্রগতি নেই এটি যেন দিনদিন ক্রমাগত হ্রাস পাচ্ছে। প্রধান আসামি এসআই আকবরসহ তার সহযোগীদের এখন পর্যন্ত গ্রেফতার করতে পারে নি পুলিশ। আকবর কোথায় তা জানেন না তারা এমনটাই দাবি করছেন। আমার ছেলে হত্যার আসামিদের গ্রেফতার না করা হলে আমি আমার পরিবারকে নিয়ে ফাঁড়ির সামনে থাকবো এবং অনশন চালিয়ে যাবো বলে তিনি জানান।

রায়হানের মা সালমা বেগম বলেন- ‘এই ফাঁড়িতেই রায়হানকে হত্যা করা হয়েছে। এই ফাড়ি থেকে আমার লাশ যাবে।’ এসময় তিনি বলেন আর কোনো রায়হান যেন এমন নির্মমভাবে হত্যা না হন এই নিশ্চয়তাও চান তিনি।

এর আগে আকবরসহ সকল অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারে ৭২ ঘন্টার কর্মসূচি আল্টিমেটাম দেয় এলাকাবাসী। যে আল্টিমেটামের সময় পাড় হয় গত বুধবার। পরে বুধবার ২১ অক্টোবর ফের নতুন করে ৩ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করে এলাকাবাসী তবুও তারা নিশ্চিত হতে পারছে না যে আকবরকে পুলিশ গ্রেফতার করতে সফল হতে পারবে। এদিকে ঘোষিত কর্মসূচির মধ্যে ছিল- বৃহস্পতিবার ২২ অক্টোবর  পিবিআই এর কর্মকর্তাদের সাথে এলাকাবাসী ও রায়হানের পরিবারের সাক্ষাত, শুক্রবার জুমার নামাজের পর মসজিদে মসজিদে রায়হানের জন্য মোনাজাত ও শনিবার ছিল মানববন্ধন। ২য় ধাপে দেয়া এ কর্মসূচি শেষ হলেও হতাশাই থাকে রায়হানের স্বজনদের। তারা গ্রেপ্তার দেখেননি আকবরসহ সকল অভিযুক্তদের। এমন হতাশায় এবার অনশনে বসলেন তারা।

মূলত, গত ১১ অক্টোবর সিলেট  বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে রায়হানের মৃত্যুর ঘটনায় কোতোয়ালী থানায় মামলা দায়ের করেন রায়হানের স্ত্রী। এ ঘটনায় বন্দর বাজার ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবরসহ চার পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত ও তিন জনকে প্রত্যাহার করা হয়। মামলা দায়ের করার ১৪ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো পলাতক প্রধান অভিযুক্ত বহিষ্কৃত ইনচার্জ (এসআই)  আকবর হোসেন। 

মামলার তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই ইতোমধ্যে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাশ ও হারুনুর রশিদকে গ্রেফতার করে ৫ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে।

নিচে অন্যান্য খবর.....

করোনা সারা বিশ্বজুড়ে এক ভয়াবহ নাম  ইউরোপ, আমেরিকা সহ সারাবিশ্ব জুড়ে সে তার ভয়াবহতা দেখাচ্ছে, এদিকে আমােদর দেশের করোনা পরিস্থিতি অস্বাভাবিক পর্যায়ে রয়েছে, তার মাঝে শীতের সময় এর প্রভাব আরো বাড়বে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। 


করোনার এই ২য় ওয়েব মোকাবেলা করার জন্য সরকার ইতিমেধ্য নানান পদক্ষেপ নেওয়া শুরু করেছে। তাই  করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় এখন থেকে মাস্ক ছাড়া আসলে কাউকে সরকারি ও বেসরকারি অফিসগুলোতে সেবা দেওয়া হবে না। এ জন্য ‘নো মাস্ক, নো সার্ভিস’ নীতি বাস্তবায়ন করা হবে। বেসরকারি অফিসগুলোতে এই নীতি মানা হচ্ছে কি না তা পরিদর্শন করা হবে বলেও জানানো হয়।

আজ রোববার (২৫ অক্টোবর) মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে সরকারের এই সিদ্ধান্তের কথা জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে ভার্চ্যুয়াল এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় আজ। বৈঠকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায়  স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের গৃহীত পদক্ষেপ সম্পর্কে মন্ত্রিসভাকে অবহিত করা হয়। এই বিষয়টি সাংবাদিকদের জানানোর সময় প্রশ্নের জবাবে 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ