সর্বশেষ

10/recent/ticker-posts

পদত্যাগ করতে চান বিট্রিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন

 

Boris Johnson
Prime Minister of the United Kingdom


বিট্রিশ  প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের পদ সর্ব্বোচ্চ হলেও বেতনে পুষে না তার।  তিনি বেতন যা পান, তাতে কুলোচ্ছে না বলে দাবি করেন তিনি। 

 তাই পদত্যাগের চিন্তাভাবনা করছেন বরিস জনসন। ঘনিষ্ঠ মহলে নিজেই নাকি সে কথা জানিয়েছেন তিনি। বিভিন্ন ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম অন্তত এমনটাই দাবি করছে।  আসছে বসন্তের মধ্যে বরিস জনসন এ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলতে পারেন বলে দাবি তাদের। 


ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এই মুহূর্তে তিনি বছরে ১ লক্ষ ৫০ হাজার ৪০২ পাউন্ড বেতন পান ,  বাংলাদেশি মুদ্রায় ১কোটি ৬৪ লাখ ৯৫ হাজার টাকা প্রায়। কিন্তু তিনি ২০১৯ সালের  জুলাইয়ে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার আগে তার চেয়ে ঢের বেশি রোজগার করতেন বলে জানা যায়।

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম ও তার ঘনিষ্ঠজনদের কাছ থেকে জানা যায় যে-ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগে শুধুমাত্র খবরের কাগজে লিখেই মাসে প্রায় ২৩ হাজার পাউন্ড রোজগার করতেন বরিস জনসন, বাংলাদেশি  মুদ্রায় যা প্রায় ২৬ লক্ষ ২২ হাজার  টাকা। তা বরিস জনসন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেও প্রচুর ইনকাম করতেন । এমনকি এক বার এক মাসে তিনি ১ লক্ষ ৬০ পাউন্ডও রোজগার করেছিলেন, বাংলাদেশি মুদ্রায় যা দেড় কোটি টাকার বেশি।

তাই পদত্যাগ নিয়ে বরিস জনসন  ভাবনা চিন্তা শুরু করে দিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। তবে হোয়াইট হল সূত্রে খবর, এখনই পদত্যাগ করার কথা ভাবছেন না বরিস। ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে চান তিনি। একই সঙ্গে করোনা পরিস্থিতি থেকে দেশকে বার করে আনার পরিকল্পনাও রয়েছে। তাই কমপক্ষে আরও ছ’মাস অপেক্ষা করতে চান তিনি।

বরিসের পদত্যাগ নিয়ে প্রশ্ন করলে ব্রিটিশ পার্লামেন্টের এক এমপি জানান, কমপক্ষে ছয় সন্তানের ভরণপোষণের দায়িত্ব রয়েছে বরিসের কাঁধে। তাঁদের পড়াশোনার খরচও দিতে হয় তাঁকে। বরণ-পোষন দিতে হয় প্রাক্তন স্ত্রী মারিনা হুইলারকেও। ওই বেতনে সব কিছু সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন তিনি।ব্রিটিশ পার্লামেন্টের অন্যান্য এমপিদের মতে, আসলে পূর্বসুরি টেরেসা মে, ডেভিড ক্যামেরন এবং টোনি ব্লেয়ারদের দেখে হিংসে হচ্ছে বরিসের। প্রধানমন্ত্রী পদে পদত্যাগ করার পর বক্তৃতা পিছু ১০ লক্ষ পাউন্ড আয় করেন টেরেসা। ডেভিড ক্যামেরন বক্তৃতা পিছু ১ লক্ষ ২০ হাজার পাউন্ড আয় করেন, বাংলাদেশি  মুদ্রায় যা প্রায় ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা।


নিচে অন্যান্য খবর পড়ুন.....

ডাকসু'র সাবেক ভিপি নুরুল হকের নেতৃত্বে খুব শীঘ্রই আসছে নতুন রাজনৈতিক দল "বাংলাদেশ গণ অধিকার পরিষদ"। দেশের মানুষের গনতন্ত্র ফিরিয়ে দেওয়া এবং শৈরশাসন দূর করাই এই সংগঠনের মূল উদ্দেশ্য। নতুন দল পরিচালনা করার জন্য এবং দলকে সুন্দরভাবে সংগঠিত করার জন্য আর্থিক চাহিদা পূরনে জনগনের কাছে গনচাঁদা চাইলেন সাবেক ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর

বাকি অংশ দেখুন>>>


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ