সর্বশেষ

10/recent/ticker-posts

সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেলে ক্ষতিপূরণ এখন ৫ লক্ষ টাকা





সড়ক দুর্ঘটনা একটি ভয়াবহ নাম, বিশেষ করে অপরিকল্পিত সড়ক কাঠামো এবং সুশৃঙ্খল আইন না থাকার কারণে সড়ক দুর্ঘটনা বেশি হয়। 


উপমহাদেশের মধ্যে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি সড়ক দুর্ঘটনা হয়, তার অনেক গুলো কারন আছে এবং সরকারও অনেক বছর ধরে সেই কারণ খুঁজে বের করে আইনি ব্যবস্থাও নিয়েছেন।  কিন্তু এতেও ভালো ফলাফল পাওয়া যায় নি।

অবশেষে নতুন করে সড়ক আইন বিধিমালা প্রনিত হয় এবং এতে বলা হয়, সড়ক দুর্ঘটনায় কেউ আহত হলে ক্ষতিপূরণ পাবেন তিন লাখ টাকা। নিহত ব্যক্তির পরিবার পাবে পাঁচ লাখ টাকা। নতুন সড়ক আইনে ক্ষতিপূরণের এ ব্যবস্থা রেখে খসড়া বিধিমালা তৈরি করেছে সরকার। ক্ষতিপূরণের অর্থের মূল জোগানদাতা যানবাহনের মালিকেরা। সরকারও অনুদান দেবে।

নতুন সড়ক আইন পাস হয় দুই বছর আগে কিন্তু  কার্যকর হয়েছে গত বছরের নভেম্বর মাসে। আইনে ক্ষতিপূরণের কথা থাকলেও বিধিমালা তৈরি না হওয়ায় তা কার্যকর হয়নি এবং যারা সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হন তারা তাদের বিধিমালা অনুযায়ী অর্থ থেকে বঞ্চিত হন।  নিরাপদ সড়কের দাবিতে সোচ্চার ব্যক্তিরা বলছেন, সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতদের বড় অংশই পরিবারের উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। তারাই যখন দূর্ঘটনার শিকার হন তখন পরিবারের ভরণ পোষনের দায়িত্ব নেয়ার মতো কেউ থাকে না। আর তাই সড়ক দুর্ঘটনার  ক্ষতিপূরণ আরও বাড়ানো দরকার।


সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ  নতুন সড়ক আইনের  বিধিমালা তৈরি করেছে। চূড়ান্ত  সিন্ধান্ত নেওয়ার জন্য এটি এখন আইন মন্ত্রণালয়ে আছে। ক্ষতিপূরণ দিতে আর্থিক তহবিল গঠন করতে হবে।


তাদের কাছে এই বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ এর চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার গত সোমবার বলেন , 
সড়ক আইনের বিধিমালার ওপর আইন মন্ত্রণালয়ের পর অর্থ মন্ত্রণালয়ের মতামত নিতে হবে। এরপর সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয় বিধিমালাটি অনুমোদন দেবে। এরপরই ট্রাস্টি বোর্ড গঠন এবং যানবাহনের মালিকের কাছ থেকে চাঁদা আদায় শুরু হবে। তিনি বলেন, দুর্ঘটনায় মানুষের মৃত্যু বা পঙ্গু হওয়ার ক্ষতি তো কোনোভাবেই পোষানো সম্ভব নয়। আর্থিক সহায়তা পেলে আহত ব্যক্তি ও নিহত ব্যক্তির পরিবার কিছুটা হলেও উপকার পাবে।

এই আইনের বাস্তবায়ন হলে সড়ক দুর্ঘটনা অনেকাংশে কমে যাবে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলেন যদি অধিক পরিমানে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয় তাহলেই এটা কমানো সম্ভব, তখন দেখা যাবে বড় অংকের টাকার জন্য সবাই একটু বাড়তি সচেতনতা অবলম্বন করবে।

উল্লেখ যে, দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা নিয়ে সরকারি-বেসরকারি তথ্যে পার্থক্য রয়েছে। সরকারি হিসাবে, ২০১৫ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত পাঁচ বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ১৮ হাজার ২৬৩ জন, আহত হয়েছেন ১২ হাজার ৩২১ জন। আর বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির তথ্য অনুযায়ী, এ সময় প্রাণ হারিয়েছেন ৩৭ হাজার ১৭০ জন, আহত হয়েছেন প্রায় ৮৩ হাজার।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ